লেখাপড়ার পাশাপাশি কিছু ব্যবসার আইডিয়া

লেখাপড়ার পাশাপাশি কিছু ব্যবসার আইডিয়া দেওয়া হল।

শুরু করতে পারাটা সবচাইতে কঠিন ।

বিশুদ্ব পানি সরবরাহ

বিশুদ্ব পানি সরবরাহ করার ব্যাবসা করতে পারে। অর্থ্যাৎ, পানির বোতল সরবরাহ।কোনো ভালো প্রতিষ্ঠানের সাথে কথা বলে, সে এই ব্যাবসা শুরু করতে পারে। যেহেতু, এখন সব জায়গায় বিশুদ্ব পানির খুবইসংকট।তাই বাসা, স্কুল, কলেজ, প্রতিষ্ঠান সব জায়গায় এটিরপ্রৈয়জন।প্রথমবার নিজ খরচে পানিরবোতল, স্ট্যান্ড ভোক্তাদের নিকট সরবরাহ করলেতারপর থেকে তারা নিয়মিত পানি কিনে খাবে।সেমোবাইলে অর্ডার নিবে এতে সবসময় তাকে না থাকলে ও চলবে। গারি (ভ্যান) ও লোক রাখলে তারা সব করতে পারবে। সে শুধু তদারকি করলে চলবে।তাই এই ব্যাবসাটি যে কোন ছাত্র বা অন্যন্য কর্মজীবী দের জন্য উত্তম।

বই, খাতা, কলম কিনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিক্রয়

পড়ালেখার উপর চাপ না নিয়েই বিজনেসকরতে চায় সেহেতু সে পাইকারি ধরেবিভিন্ন বই, খাতা, কলম কিনে তার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিক্রয় করতে পারে। এর সুবিধা হলঃ
১। সে তার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সহপাটি, সিনিয়র, জুনিয়র, প্রতিবেশী, আত্তিয়র কাছে বিক্রয় করবে আর তাতে তার দোকানদেওয়া লাগবেনা। সে বই/কলম/খাতা বাসায় রেখেই বিক্রয় করতে পারবে।
২। যেহেতু তার দোকান ভাড়া, কর্মচারী ভাড়া কিছুই লাগবেনা সেহেতু সে দোকানের থেকেতুলনামুলক কম দামে বিক্রয় করে লাভ করতে পারবে।
৩। মেরাজ থেকে কম দামে বই পত্র পাওয়ার কারনে সেখানকারছাত্ররা তার থেকেই বই কিনবে। এবং তারথেকে ছাত্ররা তাদের আত্মীয় স্বজনদের জন্যও কিনবে কারন একি বই তারা দোকানের তুলনায় মেরাজের কাছ থেকে কম দামে কিনতেপারছে।
৪। এরপর আস্তে আস্তে মেরাজ যখন তার ছাত্রজীবন শেষ করবে তখনতার কাছে বেশ মোটা অংকের টাকা জমাহবে, এখন সে বই নিয়ে অনলাইনে বিজনেস যেমনরকমারির মত অথবা স্থানীয় ভাবেওবিজনেস করতে পারবে অথবা অন্য বিজনেস করতে পারবে।

 টিউশনি বা কোচিং

লেখাপড়ার পাশাপাশি কোচিং একটি ভাল মানের আয় রোজগারের পথ হতে পারে

বর্তমান বাংলাদেশ এ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং এর জয়জয়কার। সে যেহেতু মেধাবি তাই সে যদি সহজ শর্তে কোন একটি ভর্তি কোচিং এর শাখা নিতেপারে তাহলে এটা তার পড়াশোনা শেষ করতে করতে অনেক বড়প্রতিষ্ঠান হয়ে যাবে। এ তেঁ মেরাজ এর ফামিলি অ তেমন অমত করবে না। বিজ্ঞাপন এবং সমস্ত সাপোর্ট দিবে মাদার কোচিং আর ফামিলি থেকে মেনটাল সাপোর্ট পেতেতার বেগ পেতে হবে না। সবচাইতে বড় সুবিধা জেতা সেতা হল সে টাকা ইনকাম করার জন্য বেশি বেশি পরবে। টাকা ইনকাম এর নেশা সবচাইতে বড় নেশা।

এই নেশাটা যদি পড়ার সাথে যোগ হয় তাহলে একটু খোঁজ নিলে দেখতে পাবে, যারা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং এর শাখা চালাছেছেন তারা প্রতি সেশনে প্রায় ৫-৭ লাখ টাকাপ্রফিত করতে পারে। এবছর HSC তেঁ ৭০,০০০ A+ পেয়েছে। এরা সবাই কোচিং করবে। তাই ধাকার মধ্যে বা বাইরে যেখানে এ হোক ২০০-৩০০ ছাত্রজোগাড় করা খুব বেশি কঠিন কাজ না। ছাত্র জোগাড় করার জন্য সে একজন বা দুইজন কলেজ teacher কে সাথে রাক্তে পারেন। তাহলে তার ফামিলি ও নিশ্চিন্ত থাকবে। ২০০ ছাত্র ৬০০০ টাকা করে ভর্তি করলে ও ১২ লাখ টাকা। বড়জোর ২-৩ লাখ টাকা খরচ হবে। ঢাকাই বা ঢাকার বাইরে যে কোন জেলায় শাখা করার জন্য সমস্ত সাপোর্ট পারবেন ।

কলম পাইকারি দামে কিনে বিভিন্ন লাইব্রেরী /বই খাতার দোকানে সাপ্লাইকরতে পারে

পড়াশোনার পাশাপাশিকলম পাইকারি দামে কিনে বিভিন্ন লাইব্রেরী /বই খাতার দোকানে সাপ্লাইকরতে পারে! এতো পড়াশোনার কোন ক্ষতি হবে না আর আস্তে আস্তে সে নিজেকে আরওপ্রসারও করতে পারবে ব্যাবসায়।

আপনি যে এলাকায় বসবাস করেন সেই এলাকায় কোন জিনিস ভাল মানের লাভ করা যায় মাথা খাটিয়ে সেটাতেই নামতে হবে।

5752total visits,6visits today

, , ,

Leave a Reply

Be the First to Comment!

avatar
  Subscribe  
Notify of